কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায়। কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায়। কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়? 

কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায় | কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায় | কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়?

অনেক সময় আমাদের কাশি হয়। কিন্তু কাজের বিভিন্ন ধরন থাকে। মাঝে মাঝে দেখা যায় আমাদের কফ কাশি অর্থাৎ কাশি হওয়ার সাথে সাথে আমাদের পোষ্ট দেয়া হয়। এটাকে বলা হয় কফ-কাশি সাধারণ অন্যান্য কাশি হলে খুব সহজেই সেটি চলে যায়। কিন্তু যখন কফ কাশি হয়। তখন কফ-কাশি খুব সহজে যেতে চায়না অফ কাছে যেতে সময় লাগে। কিন্তু আমরা যদি কিছু উপায় অবলম্বন করি কিছুই। যদি নিয়মগুলো জানি যেগুলো অবলম্বন করলে ওদের কফ-কাশি দূর করতে সাহায্য করবে। কফ-কাশি দূর হবে কক কাশি ভালো হবে তাহলে হয়তো ভালো হয়। 

তাই আমাদেরকে আগে জানতে হবে। কিভাবে কফ-কাশি দূর করা যায়। কফ-কাশি দূর করার উপায় গুলো কফ কাশি হলে করণীয় কি তাহলে আমরা এই উপায় গুলো অবলম্বন করে। আমরা তাড়াতাড়ি এর থেকে পরিত্রাণ পেতে পারবো অনেক সময় দেখা যায়। অনেকেই শুধুমাত্র এই বিষয়গুলো না জানার জন্যই এর থেকে রেহাই পেতে পারে না। অনেকের এ বিষয়গুলো জানা থাকে না। এর কি কি উপায় অবলম্বন করা উচিত কি কি করণীয় এবং কফ-কাশি দূর করা। যে বিষয়গুলো এগুলো অনেকেই জানেনা। যদি তারা এ বিষয়গুলো জানতো তাহলে হয়তো তাদের জন্য অনেক ভালো হতো।

তো চলুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে কফ-কাশি দূর করা যায়। কফ-কাশি দূর করার উপায় কফ কাশি ভালো করার উপায় কফ কাশি হলে করণীয় সম্পর্কেঃ

  • কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায়।
  • কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায়।
  • কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়?
  • কফ কাশি ভালো করার উপায়
  • কফ কাশি হলে করণীয়।
  • কিভাবে কফ কাশি ভালো করা যায়?
  • কফ কাশি কমানোর উপায়।
  • কিভাবে কফ কাশি কমানোর যায়।
  • কফ কাশি ভালো করতে করণীয় খুব কাশি দূর করতে করণীয়।

গরম পানির ভাপ

কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায় | কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায় | কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়?

আপনার যদি খুব কাশি হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই। আপনি গরম পানির ভাপ নিতে পারেন। আপনি যদি গরম পানির ভাপ নিয়ে থাকেন। তাহলে আপনার কভ তাড়াতাড়ি হালকা হতে থাকবে। এবং আপনার কফ-কাশি ভালো হতে থাকবে। বিষয়টা আমরা তেমন একটা গুরুত্ব সহকারে দেখিনা। কিন্তু আমরা যদি বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখি তাহলে অবশ্যই আমাদের কফ-কাশি দূর করতে সাহায্য করবে। আপনি এটি দিনে কয়েকবার করতে পারেন। প্রথমেই আপনি স্বাভাবিকভাবে কিছু গরম পানি নেবেন হালকা কুসুম গরম পানি হলেও চলবে। অর্থাৎ যেটা থেকে উঠবে তবে সেটা যেন সহ্য করার মত হয়। কোন রকম যাতে ক্ষতি না হয় বা কোনরকম সমস্যা না হয়। এ বিষয়টা অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। এরপর আপনি সেই পানি থেকে ভাব নিতে পারেন তাহলে দেখবেন। আপনার কফ-কাশি তাড়াতাড়ি সেরে যাবে। আপনার হালকা হয়ে যাবে। তা অবশ্যই আপনি কফ-কাশি দূর করার জন্য গরম পানির ভাপ নেবেন।

আদ্র বাতাস গ্রহণ

কফ কাশি হলে করণীয় গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি হলো বাতাসের আদ্রতা গ্রহণ করা। অর্থাৎ আদ্র বাতাসে গ্রহণ করা। সেটি আপনি বিভিন্ন উপায়ে করতে পারেন। আপনি যদি যেকোনোভাবেই আদ্র বাতাসে গ্রহণ করতে পারেন। তাহলে আপনার কতগুলো পাতলা হয়ে যাবে আর যদি পাতলা হয়ে যায়। তাহলে এগুলো তাড়াতাড়ি বেরিয়ে আসবে। আর্ক অফ যত বেশি বেরিয়ে আসবে। তত আপনি তাড়াতাড়ি কফ-কাশি থেকে মুক্ত হবেন। তাই এই বিষয়টা অবশ্যই আপনাকে খেয়াল করতে হবে। যাতে করে আপনি আদ্র বাতাসে গ্রহন করে। আপনার কক্কা সেগুলো তাড়াতাড়ি পাতলা করতে পারেন। কক্কা সেগুলো তাড়াতাড়ি আপনার ভেতর থেকে বের করতে পারেন। এবং আপনি যত তাড়াতাড়ি করা থেকে সেরে উঠতে পারেন।

লেবু ও মধু

কফ কাশির জন্য আরেকটি ভালো উপায় হলো লেবু এবং মধু পান করা। লেবু এবং মধু দুটোই যেকোনো কাশির জন্য ভালো। তবে কফ কাশির জন্য এদুটো অবশ্যই খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার যদি কফ-কাশি হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি মধু এবং লেবু দুটোর মিশ্রণ করে খেতে পারেন। প্রথমে আপনি কিছু লেবুর রস নিতে পারেন। তারপর লেবুর রসে কিছু পরিমাণ মধু ঢেলে দিবে। এরপর দুটোকে ভালোভাবে মিশ্রন করে নেবেন। তারপর আপনি আপনার প্রয়োজন মত করে খেতে পারেন। এছাড়া আপনি চাইলে প্রথমেই কিছু পানি নিবেন। এবং সেটা যদি হয় হালকা কুসুম গরম পানি তাহলে অবশ্যই ভালো হবে এবং তার সাথে কিছু পরিমাণ লেবুর রস নেবেন। এবং তাতে কিছু করবেন মজা নিবেন। হালকা কুসুম গরম পানি লেবুর রস এবং মধু তিনটি খুব ভালোভাবে নেড়ে নিবেন। এবং যাতে করে আপনার মিশ্রণটি খুব ভালো হয়। এরপর আপনি আপনার প্রয়োজন মত এটি পান করতে পারেন দেখবেন। এতে করে আপনার কফ-কাশি খুব দ্রুত কাজ করবে। অর্থাৎ আপনার কফ-কাশির খুব ভালো কাজ করবে।

তরল খাবার

কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায় | কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায় | কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়?

তরল খাবার সবসময়ই আমাদের জন্য ভালো তোর খাবার অনেক সময় উপকার করে থাকে। বিশেষ করে যখন আমাদের কোন সমস্যা হয়। বা আমাদের অসুখ হতে দেখা যায় তখন তরল খাবার প্রয়োজন আপনার যদি কফ-কাশি হয়ে থাকে। তখন অবশ্যই আপনার জন্য তর খবর খবর প্রয়োজন। কেননা তখন তরল খাবার খেলে কফ গুলো তাড়াতাড়ি পাতলা হতে থাকবে। এবং আপনাকে তাড়াতাড়ি সুস্থ হতে সাহায্য করবে। অর্থাৎ আপনার কতগুলো তাড়াতাড়ি পাতলা হয়ে গুলো তাড়াতাড়ি বেরিয়ে আসবে। এবং আপনার কফ-কাশি তাড়াতাড়ি দূর হতে সাহায্য করবে। তাই অবশ্যই কাশি হলে তার খাবার খাওয়ার চেষ্টা করবেন।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে কাশি দূর করা যায়? কাশি দূর করার উপায় - কাশি ভালো করার উপায়


ব্লাক কফি

আমরা প্রায় অনেকেই কফি খেয়ে থাকে আপনার যখন কফ-কাশি হবে। তখন অবশ্যই আপনি কফি খেতে পারেন তবে সেটা যদি হয় ব্লাক কফি তাহলে অবশ্যই আপনার জন্য ভালো হবে। কেন ব্লক কফিন কফ কাশির জন্য খুবই উপকার করে থাকে। অর্থাৎ আপনার কফ কাশি হলে আপনি যদি ব্ল্যাক কফি খেয়ে থাকেন। তাহলে কফ-কাশি গুলো তাড়াতাড়ি সুস্থ হতে সাহায্য করবে। আপনার কফ-কাশি দূর করার জন্য খুবই উপকার হবে। তা অবশ্যই কফ-কাশি দূর করার জন্য ব্লাক কফি খেতে পারেন।

মাথা উঁচু করা

যদি কারো কখনো কফ-কাশি হয়ে থাকে তাহলে মাথা উঁচু করে রাখতে হবে। অর্থাৎ তিনি যখন ঘুমাবেন অথবা তিনি যখন না শুয়ে থাকবেন। তখন যথাসম্ভব চেষ্টা করবে যাতে করে তার মাথা উঁচু থাকে। অর্থাৎ তিনি শোয়ার সময় মাথা উঁচু করে সুখে এতে করে সবসময় তার জন্য ভালো হবে বিশেষ করে যখন তিনি মাথা উঁচু করে রাখেন। তখন কফ-কাশি গুলো তার জন্য সমস্যা হয় না আস্তে আস্তে এগুলো কমতে থাকে। এবং তার ক্ষেত্রে অনেকটাই ভাল অনুভব করেন। বিষয়গুলো অবশ্যই খেয়াল করতে হবে।

অ্যাপেল ভিনেগার

কফ কাশি দূর করার জন্য অ্যাপেল ভিনেগার একটি উপাদান হিসেবে কাজ করে। কফ-কাশি দূর করার জন্য আপনি অ্যাপেল ভিনেগার বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করতে পারেন। খেতে পারেন আপনি আমাকে কিছু গরম পানির সাথে কিছু পরিমাণ ভিনেগার মিশিয়ে খুব ভালোভাবে নেড়ে একটি ভালোভাবে মিশ্রন তৈরী করে। নেবেন এরপর আপনি আপনার প্রয়োজন মত যতটুকু প্রয়োজন। প্রতিদিনই আপনি আপেল ভিনেগারের সাথে হালকা কুসুম গরম পানির মিশ্রণটি খেতে পারেন। এতে করে আপনার কতগুলো পাতলাহয়ে। খুব তাড়াতাড়ি আপনার কাশি দূর হওয়ার জন্য উপকারী ভূমিকা পালন করবে।

চা পান করা

কফ কাশি ভালো করার ১০ টি উপায় | কফ কাশি দূর করার ১০টি উপায় | কিভাবে কফ কাশি দূর করা যায়?

কফ কাশি দূর করার জন্য আরেকটি উপায় অবলম্বন করতে পারেন। সেটি হল চা পান করা আপনি যদি চা পান করেন। তাহলে আপনার আর কফ-কাশি খুব তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাবে। অর্থাৎ আপনার কফ-কাশি দূর হওয়ার জন্য চা পান করা খুবই উপকার আপনার কাশি কমে যাবে। যদি আপনি চা পান করতে পারেন আপনার কতগুলো পাতলা হয়ে যাবে। কবে গুলো আস্তে আস্তে কমে যাবে দূর হয়ে যাবে। যদি আপনি চান করেন। আপনি প্রতিদিন কয়েকবার করে তার সাথে আপনার যখন প্রয়োজন হবে। এবং যতটুকু প্রয়োজন হবে ততটুকু আপনি চা পান করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে আপনি লাল চা পান করলে কাশির জন্য খুবই উপকার হবে।

গরম পানি ও মধু

গরম পানি এবং মধু দুটো মিলিয়ে যদি আপনি একটি মিশ্রণ তৈরি করে এবং কফ কাশির জন্য খেতে পারেন। তাহলে অবশ্যই সেটি আপনার কফ কাশির জন্য খুবই উপকারী ভূমিকা পালন করবে। মধু এবং গরম পানি আপনার জন্য খুবই উপকারী। তবে এটির জন্য আপনি একটি মিশ্রণ তৈরী করে নিতে পারো। যে মিশ্রণটি হয়তো আমরা অনেকেই সময় ব্যবহার করে থাকি না। আপনার কথা শুনে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ হালকা গরম পানি দেবেন। এবং সাথে কিছু পরিমাণ মধু মিশিয়ে একটি ভালোভাবে মিশ্রণ তৈরি করে। সেটি আপনি ব্যবহার করতে পারেন খেতে পারেন। আপনার কফ দূর করার জন্য

কাঁচা হলুদ

কাঁচা হলুদ কফ কাশি দূর করার জন্য আরেকটি উপায়। আপনি কাঁচা হলুদের বিভিন্ন ব্যবহার করতে পারেন। আপনি কাঁচা হলুদ বিভিন্ন উপায় অবলম্বন করে। আপনার কফ-কাশি গুলো তাড়াতাড়ি দূর করতে পারেন। কাঁচা হলুদের রস বের হয় প্রথমে আপনি সেগুলো সংগ্রহ করবেন। তারপর হালকা কিছু গরম পানির সাথে সেই রস দিয়ে ভালোভাবে মিশ্রণ তৈরি করে নেবেন। অ্যা আপনি কাজ হল এবং গরম পানি খেতে পারেন। এতে করে আপনার তাড়াতাড়ি দূর হয়ে। যাবে আপনার কাছে তাড়াতাড়ি দূর হয়ে যাবে।

Post a Comment

Previous Post Next Post